মঙ্গল গ্রহ হলো সূর্য থেকে চতুর্থ দূরবর্তী গ্রহ এবং বুধের পরেই সৌরজগতের দ্বিতীয়-ক্ষুদ্রতম গ্রহ।
এই গ্রহের পৃষ্ঠতলে ফেরিক অক্সাইডের আধিক্যের জন্য গ্রহটিকে লালচে রঙের দেখায়, যা খালি চোখে দৃশ্যমান মহাজাগতিক বস্তুগুলির মধ্যে এই গ্রহটিকে স্বতন্ত্রভাবে দর্শনীয় করে তোলে।
সেই জন্য এই গ্রহটি “লালগ্রহ” নামেও পরিচিত।


আমরা যদি মহাকাশ থেকে কোনো টেলিস্কোপ বা যন্ত্রের সাহায্য ছাড়া মঙ্গল গ্রহ দেখি তাহলে এটি দেখতে হবে আকর্ষনীয় ও বাদামি লাল রঙের।  শুধু মঙ্গল গ্রহই নয় সৌরজগতের প্রত্যেকটি গ্রহ নক্ষত্রই বিভিন্ন রঙ এর হয়ে থাকে।  তবে প্রত্যেকটা গ্রহের রঙ ধারনের পেছনেও কারন রয়েছে।  যেমন ধরুন আমাদের পৃথীবি গ্রহটি মহাশুন্য থেকে দেখতে একটা নীল রঙের বলের মতো৷ নীল রঙ দেখার কারনটি হলো আমাদের পৃথিবীর উপাদানের ৭০ শতাংশ হচ্ছে পানি অর্থাৎ সমুদ্র।  দূর থেকে সমুদ্রের পানি নীল রঙ দেখায়।

ঠিক ভিন্ন কিছু কারনে মঙ্গল গ্রহের রংও লালচে দেখায়। এখন পর্যন্ত বহু গবেষণার মাধ্যমে মঙ্গল গ্রহের বিভিন্ন দিক ও বিভিন্ন উপাদান সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে।  এর মধ্যে কয়েকটি সফল মিশনও চালানো হয়েছে।
আমরা এই গ্রহে অনেক উপগ্রহ পাঠিয়েছি তার ভৌগোলিক অবস্থা এবং জৈবিক অবস্থার উপর গবেষণা করার জন্য যে মানুষের জীবন মঙ্গল গ্রহে জীবিত থাকতে পারে কিনা।
উদাহরণস্বরূপ, নাসা মঙ্গলগ্রহের উপস্থিত ও বিভিন্ন অবস্থা পরীক্ষা করার জন্য মঙ্গলগ্রহে “Curiosity” ল্যান্ড রোভার পাঠায়।  ভারত তার ভৌগোলিক অবস্থা যাচাই করার জন্য “MOM” মিশন গ্রহণ করেছে।

মঙ্গল গ্রহের মাটি


মঙ্গল-গ্রহ লাল হওয়ার প্রধান কারন হচ্ছে  এর উপরে উপস্থিত ধুলো।
এই ধুলো লালচে আয়ন-অক্সাইড দ্বারা গঠিত।  এই কারণে এই গ্রহটিকে “মরিচা গ্রহ” (Rusted Planet)  বলা হয়।
একটি গবেষণা অনুসারে, জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা ঘোষণা করেছিলেন যে লোহার কণা ধারণকারী গ্রহাণুর সংঘর্ষের কারণে মঙ্গল গ্রহে লোহা এসেছে।
তারপর এভাবেই লোহার কণাগুলি মঙ্গলগ্রহের পৃষ্ঠে রয়ে গেছে ।
এবং মঙ্গলের ভূপৃষ্ঠে উপস্থিত লোহা ও এই গ্রহের পৃষ্ঠে উপস্থিত পানির সাথে বিক্রিয়া করে এবং “আয়রন অক্সাইড” হয়ে ওঠে।
যা সাধারণত “মরিচা” নামে পরিচিত।
মরিচিকার রাসায়নিক সূত্র হল – “Fe2O3.XH2O ”।  যেখানে X এর মান 0 থেকে 3 এর মধ্যে থাকে।



এর ভিত্তিতে আমরা অনুমান করতে পারি যে এই গ্রহে প্রচুর পরিমাণে জল রয়েছে। কারণ মরিচা তৈরির বিক্রিয়ায় পানিই হচ্ছে মূল উপাদান।  কিন্তু সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা বলছেন, মঙ্গল গ্রহে অল্প কিছু পরিমাণ পানি ছিল। এবং মরিচা তৈরির প্রধান কারন হচ্ছে সূর্য দ্বারা নির্গত “অতিবেগুনী রশ্মি”।
সামান্য পরিমাণ পানি ও সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মির কারনেই মঙ্গলের ভূ-পৃষ্ঠের লোহার কনা গুলির উপর অক্সাইডের উপস্তিতির জন্যই লাল রং ধারণ করে।
এবং এই থেকে এটাও অনুমান করা যায় যে মঙ্গলে পানির পরিমান যদিও থাকে তা একেবারেই সামান্য। 

মঙ্গল গ্রহ
360° View: Use the arrows in the top left, or click (or touch) and drag your cursor or mouse, to move the view up/down and right/left. Note: Not all browsers support viewing 360 videos. YouTube supports their playback on computers using Chrome, Firefox, Internet Explorer, and Opera browsers. For the best experience on a mobile device, play this video in the YouTube app. From Nasa’s website.

Nirjon Niyaz (Tariq)

Administrator of WHQ Bangla

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *